মঠবাড়িয়ায় মহাজোটে লাঙ্গল নয় নৌকা চায় আওয়ামীলীগ, জোটে বিদ্রোহী প্রার্থীর সম্ভাবনা

নিউজ ডেস্ক :
পিরোজপুর-৩ মঠবাড়িয়া একক আসনে মতাসীন দল বা মহাজোট থেকে কে মনোনয়ন পাচ্ছেন, সেটা আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হয়নি। তবে এ আসনে মহাজোটে জাতীয় পার্টির (এরশাদ) ডা. রুস্তুম আলী ফরাজী জোট প্রাথী হিসেবে শতভাগ চুড়ান্ত বলে আলোচনা ওঠায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের  গুরুত্বপূর্ণ নেতারাসহ তৃনমূলের বড় একটি অংশ বিক্ষুব্দ হয়ে উঠেছেন। তাঁরা দলীয় প্রার্থী হিসেবে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুর রহমানকে চান এমন দাবিতে বেশ কিছুদিন ধরে মাঠে সোচ্চার। এ নিয়ে তৃনমুল নেতাকর্মীদের মাঝে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সাংসদ ডা.ফরাজীকে নিয়ে বিভিন্ন আলোচনা সমালোচনার ঝড় তুলছেন। এমনকি এ আসনে আ.লীগের প্রার্থীর মনোনয়ন না দিলে আওয়ামীলীগের বড় এক অংশ বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে নির্বাচনী লড়াইয়ে নামবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

স্থানীয় নেতাদের দাবি, বর্তমান সাংসদ ডা. রুস্তুম আলী ফরাজী সুযোগ বুঝে বারবার দল পাল্টানো নেতা হিসেবে এলাকায় সমালোচিত। তাকে স্থানীয়রা সুযোগবাদি নেতা হিসেবে আখাা দিয়েছেন। ২০০১ সালে বিএনপির ও ২০১৪ সালে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের ৫৭ ধারায় মামলাসহ বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করেছেন বলে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের দাবি। তবে বিগত নির্বাচনে ডা. রুস্তুম আলী ফরাজি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামীলীগের একটি অংশের প্রকাশ্য সমর্থন পেয়ে নৌকার প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী ডা. আনোয়ার হোসেনকে পরাজিত করেন। স্থানীয় আওয়ামীলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে গত নির্বাচনে নৌকার ভরাডুবি হয় বলে অনেকে মনে করেন। আওয়ামীলীগের ভেতর কোন্দলের এখনও অবসান হয়নি। এমন অবস্থার বিক্ষুব্ধ আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কর্মীরা জানিয়েছেন ডা. ফরাজী মহাজোটের মনোনয়ন চুড়ান্ত হলে দলের বড় একটি অংশের দাবির প্রেক্ষিতে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমান স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে মাঠে নামার সকল প্রস্ততি গ্রহন করেছেন।

এ দিকে এ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন ২০০৮ সালে নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য ডা. আনোয়ার হোসেন,জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ডা.এম নজরুল ইসলাম,পিরোজপুর জেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন মহারাজ,উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পৌর মেয়র রফিউদ্দিন ফেরদৌস ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আশরাফুর রহমান ।

এ বিষয় উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জাহিদ উদ্দিন পলাশ বলেন, দেশরত্ন শেখ হাসিনার একটি আসন চোখের সামনে হাড়তে দেবনা। আশরাফ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। ইতি মধ্যে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা একত্রিত হয়ে আশরাফুর রহমানকে স্বতন্ত্রী প্রার্থী হবার জন্য আহবান জানিয়েছেন। আমরা নৌকার মনোনয়ন না পেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে কাজ করার সকল প্রস্ততি নিয়েছি।

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া উপজেলা জাতীয়পার্টির সভাপতি নুরুজ্জামান লিটন জানান, দীর্ঘদিন আওয়ামীলীগ ও জাতীয়পার্টি এক হয়ে কাজ করেছে। ডা. রুস্তুম ফরাজী তিনবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। এবার তিনি মহাজোটের প্রার্থী হয়ে এ আসনে আবার বিজয়ী হবেন।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি রফিউদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস বলেন, নির্বাচন হচ্ছে মহাজোটগত। জোট থেকে যাকে মনোনয়ন দিবে আমরা তার বাইরে যেতে পারিনা।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook
YouTube
error: Content is protected !!